6:14 am, Tuesday, 23 July 2024

নিম্ন মাধ্যমিকের গন্ডি না পেরিয়েই পঞ্চগড়ে  ডাক্তার কমল!

বোদা প্রতিনিধি

বোদা(পঞ্চগড়)সংবাদদাতা:
পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার নিম্ন মাধ্যমিকের গন্ডি না পেরিয়েই সিজারিয়ান সহ অন্যান্য অপারেশন করছেন কমল নামে এক ব্যক্তি৷ কমল চন্দ্র উপজেলার জননী ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে বিভিন্ন পদে কর্মরত। জানা যায়, তিনি এই ক্লিনিকের একাধারে ম্যানেজার, শিক্ষাগত যোগ্যতা ছাড়া অপারশেন থিয়েটারে (ওটি) সকল অপারেশনের কাজ করেন । গোপন সূত্র জানায় তিনি এসএসসিও পাশ করেননি। সম্প্রতি এক ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, কমল ওটি রুমে এক রোগীর সিজারিয়ান অপারেশন করছেন।ওই অপারেশন থিয়েটারে আর কোন ডাক্তারকে দেখা যাচ্ছেনা । এই ক্লিনিক নিয়ে অনেকের নানান অভিযোগের পেক্ষিতে রোববার ২৬ নভেম্বর ২০২৩ দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. লুৎফুল কবীর জননী ক্লিনিকে যান সে সময় কোন ডিউটি ডাক্তার দেখা যায়নি ।
এবং এক্সরে মেশিনের রুমটি ব্যবহার যোগ্য না উক্ত মেশিনের রঞ্জন রশি দ্বারা সাধারণ রোগী ও জনগনের ক্ষতি ও কাঁচের গেট থাকায় আপাতত এক্সরে বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন৷
তবে লাইস্নেস বিহিন ক্লিনিক ও কমলের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেননি।
ভিডিও সূত্রে রোববার বিকেলে জননী ক্লিনিকে গেলে মালিক অশেস কুমার প্রধান বলেন, কমল এখানে ওটি’র এ্যাসিস্টেন্ট ও ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত আছে এবং তার ডিএমএফ সার্টিফিকেট আছে। কিছুক্ষণ পরেই সেখানে কমল এলে এখানে কি পদে দায়িত্বে আছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি ওটি এ্যাসিস্টেন্ট এবং ম্যানজোর হিসেবে আছি৷শিক্ষাগত যোগ্যতার বিষয়ে কমল বলেন, পাচঁপীর বৈরাতী উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়েছি। অভিজ্ঞতা আছে সে হিসেবে কাজ করছি।
নিজে কেনো অপারেশন করছেন জানতে চাইলে তিনি কোন উওর না দিয়ে চলে জান । সূত্র জানায়, জননী ক্লিনিকে অবিবাহিত মেয়েদের গর্ভপাত করা হয়কি না জানতে চাইলে ক্লিনিক মালিক অশেস চুপ করে থাকেন ।
ওটি রুমের যতেষ্ঠ আলোর ব্যবস্থা নেই এবং চারটি লাইটের বাল্ব নষ্ট,জনবল সংকট, নেই ডিপ্লোমা নার্স ও সার্বক্ষনিক ডাক্তার এবং কাগজপত্র ছাড়াই র্দীঘদিন ধরে ক্লিনিকটি কার্যক্রম চালাচ্ছে। মাসখানেক আগে ময়দানদীঘির সরকারপাড়ার ৬ষ্ঠ শ্রেণী পড়ুয়া এক মেয়ের গর্ভপাত করানো হয় ঐ ক্লিনিকে।
এবিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডা. লুৎফুল কবীর বলেন, জননী ক্লিনিকের শতভাগ কাগজপত্র ঠিক নাই। উক্ত ক্লিনিকে অবিবাহিত মেয়েদের অবৈধ গর্ভপাত ঘটানো ও কমল বিষয়ে তিনি বলেন, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নিব৷

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপডেট সময় : 11:05:36 pm, Sunday, 26 November 2023
96 বার পড়া হয়েছে
error: Content is protected !!

নিম্ন মাধ্যমিকের গন্ডি না পেরিয়েই পঞ্চগড়ে  ডাক্তার কমল!

আপডেট সময় : 11:05:36 pm, Sunday, 26 November 2023

বোদা(পঞ্চগড়)সংবাদদাতা:
পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার নিম্ন মাধ্যমিকের গন্ডি না পেরিয়েই সিজারিয়ান সহ অন্যান্য অপারেশন করছেন কমল নামে এক ব্যক্তি৷ কমল চন্দ্র উপজেলার জননী ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে বিভিন্ন পদে কর্মরত। জানা যায়, তিনি এই ক্লিনিকের একাধারে ম্যানেজার, শিক্ষাগত যোগ্যতা ছাড়া অপারশেন থিয়েটারে (ওটি) সকল অপারেশনের কাজ করেন । গোপন সূত্র জানায় তিনি এসএসসিও পাশ করেননি। সম্প্রতি এক ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, কমল ওটি রুমে এক রোগীর সিজারিয়ান অপারেশন করছেন।ওই অপারেশন থিয়েটারে আর কোন ডাক্তারকে দেখা যাচ্ছেনা । এই ক্লিনিক নিয়ে অনেকের নানান অভিযোগের পেক্ষিতে রোববার ২৬ নভেম্বর ২০২৩ দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. লুৎফুল কবীর জননী ক্লিনিকে যান সে সময় কোন ডিউটি ডাক্তার দেখা যায়নি ।
এবং এক্সরে মেশিনের রুমটি ব্যবহার যোগ্য না উক্ত মেশিনের রঞ্জন রশি দ্বারা সাধারণ রোগী ও জনগনের ক্ষতি ও কাঁচের গেট থাকায় আপাতত এক্সরে বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন৷
তবে লাইস্নেস বিহিন ক্লিনিক ও কমলের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেননি।
ভিডিও সূত্রে রোববার বিকেলে জননী ক্লিনিকে গেলে মালিক অশেস কুমার প্রধান বলেন, কমল এখানে ওটি’র এ্যাসিস্টেন্ট ও ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত আছে এবং তার ডিএমএফ সার্টিফিকেট আছে। কিছুক্ষণ পরেই সেখানে কমল এলে এখানে কি পদে দায়িত্বে আছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি ওটি এ্যাসিস্টেন্ট এবং ম্যানজোর হিসেবে আছি৷শিক্ষাগত যোগ্যতার বিষয়ে কমল বলেন, পাচঁপীর বৈরাতী উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়েছি। অভিজ্ঞতা আছে সে হিসেবে কাজ করছি।
নিজে কেনো অপারেশন করছেন জানতে চাইলে তিনি কোন উওর না দিয়ে চলে জান । সূত্র জানায়, জননী ক্লিনিকে অবিবাহিত মেয়েদের গর্ভপাত করা হয়কি না জানতে চাইলে ক্লিনিক মালিক অশেস চুপ করে থাকেন ।
ওটি রুমের যতেষ্ঠ আলোর ব্যবস্থা নেই এবং চারটি লাইটের বাল্ব নষ্ট,জনবল সংকট, নেই ডিপ্লোমা নার্স ও সার্বক্ষনিক ডাক্তার এবং কাগজপত্র ছাড়াই র্দীঘদিন ধরে ক্লিনিকটি কার্যক্রম চালাচ্ছে। মাসখানেক আগে ময়দানদীঘির সরকারপাড়ার ৬ষ্ঠ শ্রেণী পড়ুয়া এক মেয়ের গর্ভপাত করানো হয় ঐ ক্লিনিকে।
এবিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডা. লুৎফুল কবীর বলেন, জননী ক্লিনিকের শতভাগ কাগজপত্র ঠিক নাই। উক্ত ক্লিনিকে অবিবাহিত মেয়েদের অবৈধ গর্ভপাত ঘটানো ও কমল বিষয়ে তিনি বলেন, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নিব৷