8:51 am, Sunday, 21 April 2024

লালমনিরহাটে আ.লীগ নেতার সিনেমা হলে জামায়াত নেতাদের গোপন বৈঠক, গ্রেপ্তার ৬

লালমনিরহাট প্রতিনিধি ।

 

লালমনিরহাট প্রতিনিধি।।

লালমনিরহাটে বন্ধ থাকা আওয়ামী লীগ নেতার সিনেমা হলে গোপন বৈঠকের সময় ছয়জন জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।বুধবার (২৩ আগস্ট) বিকেলে এ তথ্য নিশ্চিত করেন লালমনিরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওমর ফারুক।এর আগে, একই দিন ভোরে লালমনিরহাট শহরের আলোরুপা সিনেমা হল থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।গ্রেপ্তাররা হলেন- সদর উপজেলার বড়বাড়ি ইউনিয়নের বলিরাম সোনাতলা এলাকার এনামুল হকের ছেলে সোহেল পারভেজ (৩২), একই ইউনিয়নের বড় বাসুরিয়া এলাকার আবু সিদ্দিক ঠান্ডার ছেলে মিলন মিয়া (৫৮), একই গ্রামের ছকিয়ত আলীর ছেলে রাকিব হাসান (১৭), আদিতমারী উপজেলার সাপ্টিবাড়ি ইউনিয়নের পশ্চিম দৌলজোর চান্দের বাজার এলাকার মৃত অলি মাহমুদের ছেলে আজিম মিয়া (৫৮), একই উপজেলার আদিতমারী উত্তরপাড়া এলাকার আব্দুল হামিদের ছেলে আবু তাহের (৪০) ও একই গ্রামের আব্দুল গফুরের ছেলে মমিনুল ইসলাম (৩৮)।পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, আদিতমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল আলমের বন্ধ থাকা সিনেমা হল আলোরুপা। যার নাম অনুসারে ওই এলাকাটি আলোরুপা মোড় নামে পরিচিত।বর্তমানে সিনেমা হলটি বন্ধ আছে। সেই সিনেমা হলের প্রাচীরের অভ্যন্তরে থাকা বারান্দায় জামায়াত শিবিরের নেতাদের গোপন বৈঠক চলছিল।এমন গোপন তথ্যে বুধবার ভোরে সেখানে অভিযান পরিচালনা করে সদর থানা পুলিশ।পুলিশের উপস্থিতি বুঝতে পেরে সবাই পালিয়ে গেলেও একজন তরুণসহ ছয়জনকে আটক করা হয়। পরে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ জানতে পারে আলোরুপা সিনেমা হল, টেলিফোন ভবন ধ্বংস করতে তারা গোপন বৈঠকে বসেছিল।এ ঘটনায় সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মশিউর রহমান বাদী হয়ে আটক ছয়জনসহ ১৪ জনের নাম উল্লেখ করে এবং আরও কয়েকজন অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে সদর থানায় নাশকতার মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় আটকদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে বিকেলে আদালতে পাঠানো হয়।লালমনিরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওমর ফারুক জানান, সরকারকে উৎখাত ও সরকারি সম্পদ ধ্বংস করে জানমালের ক্ষতি করতে নাশকতা করার গোপন বৈঠক করছিল আটক ও পলাতকরা। তাদের নামে মামলা দিয়ে আদালতে পাঠানো হয়। অভিযুক্তরা সবাই জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মী।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপডেট সময় : 03:42:01 pm, Wednesday, 23 August 2023
59 বার পড়া হয়েছে
error: Content is protected !!

লালমনিরহাটে আ.লীগ নেতার সিনেমা হলে জামায়াত নেতাদের গোপন বৈঠক, গ্রেপ্তার ৬

আপডেট সময় : 03:42:01 pm, Wednesday, 23 August 2023

 

লালমনিরহাট প্রতিনিধি।।

লালমনিরহাটে বন্ধ থাকা আওয়ামী লীগ নেতার সিনেমা হলে গোপন বৈঠকের সময় ছয়জন জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।বুধবার (২৩ আগস্ট) বিকেলে এ তথ্য নিশ্চিত করেন লালমনিরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওমর ফারুক।এর আগে, একই দিন ভোরে লালমনিরহাট শহরের আলোরুপা সিনেমা হল থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।গ্রেপ্তাররা হলেন- সদর উপজেলার বড়বাড়ি ইউনিয়নের বলিরাম সোনাতলা এলাকার এনামুল হকের ছেলে সোহেল পারভেজ (৩২), একই ইউনিয়নের বড় বাসুরিয়া এলাকার আবু সিদ্দিক ঠান্ডার ছেলে মিলন মিয়া (৫৮), একই গ্রামের ছকিয়ত আলীর ছেলে রাকিব হাসান (১৭), আদিতমারী উপজেলার সাপ্টিবাড়ি ইউনিয়নের পশ্চিম দৌলজোর চান্দের বাজার এলাকার মৃত অলি মাহমুদের ছেলে আজিম মিয়া (৫৮), একই উপজেলার আদিতমারী উত্তরপাড়া এলাকার আব্দুল হামিদের ছেলে আবু তাহের (৪০) ও একই গ্রামের আব্দুল গফুরের ছেলে মমিনুল ইসলাম (৩৮)।পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, আদিতমারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল আলমের বন্ধ থাকা সিনেমা হল আলোরুপা। যার নাম অনুসারে ওই এলাকাটি আলোরুপা মোড় নামে পরিচিত।বর্তমানে সিনেমা হলটি বন্ধ আছে। সেই সিনেমা হলের প্রাচীরের অভ্যন্তরে থাকা বারান্দায় জামায়াত শিবিরের নেতাদের গোপন বৈঠক চলছিল।এমন গোপন তথ্যে বুধবার ভোরে সেখানে অভিযান পরিচালনা করে সদর থানা পুলিশ।পুলিশের উপস্থিতি বুঝতে পেরে সবাই পালিয়ে গেলেও একজন তরুণসহ ছয়জনকে আটক করা হয়। পরে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ জানতে পারে আলোরুপা সিনেমা হল, টেলিফোন ভবন ধ্বংস করতে তারা গোপন বৈঠকে বসেছিল।এ ঘটনায় সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মশিউর রহমান বাদী হয়ে আটক ছয়জনসহ ১৪ জনের নাম উল্লেখ করে এবং আরও কয়েকজন অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে সদর থানায় নাশকতার মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় আটকদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে বিকেলে আদালতে পাঠানো হয়।লালমনিরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওমর ফারুক জানান, সরকারকে উৎখাত ও সরকারি সম্পদ ধ্বংস করে জানমালের ক্ষতি করতে নাশকতা করার গোপন বৈঠক করছিল আটক ও পলাতকরা। তাদের নামে মামলা দিয়ে আদালতে পাঠানো হয়। অভিযুক্তরা সবাই জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মী।