4:18 pm, Monday, 22 July 2024

ঘোড়াঘাটে বেড়েছে সরিষার আবাদ

আনভিল বাপ্পি ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে বারি-১৮ জাতের সরিষার সহ বিভিন্ন জাতের সরিষা চলতি মৌসুমে ২৬৬৫ হেক্টর জমিতে আবাদ করেছেন কৃষকেরা। ধান বা অন্য ফসলের তুলনায় লাভজনক হওয়ায় কৃষকেরা দিন দিন সরিষা চাষে ঝুঁকে পড়ছেন। আবহাওয়া অনুুকুলে থাকায় সরিষার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা এলাকায় বারি-১৮ জাত সহ বারি-১৪, ১৫,১৭, বিনা ৯ ও ১১ জাতের সরিষার আবাদ হয়েছে। যা গত বছরের তুলনায় বেশি। গত মৌসুমে সরিষার আবাদ হয়েছিল ২২০০ হেক্টর জমিতে। চলতি মৌসুমে হেক্টর প্রতি ফলন গত বছরের তুলনায় বেশি হবার সম্ভাবনা রয়েছে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়- ফসলের মাঠ গুলো সরিষা ফুলের হলুদ রঙের অপরুপ শোভা ধারণ করেছে। মাঠে পরিচর্যার কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকেরা। উপজেলার চেঁচুড়িয়া গ্রামের চাষী মো. আইনুল হক ও হুমায়ন কবির বলেন, কয়েক বছর আগেও তাদের জমি পরিত্যক্ত অবস্থায় থাকত, কিন্তু বর্তমানে কৃষি বিভাগের পরামর্শে তারা এখন জমিতে সরিষার চাষ করেছেন। তারা বলছেন বারি-১৮ জাতের সরিষা ভোজ্য তেলের জন্য সবচেয়ে উপযোগী। উপজেলা কৃষি অফিসার মো. রফিকুজ্জামান জানান, এ অঞ্চলের মাটি ও আবহায়া সরিষা চাষের জন্য উপযোগী হওয়ায় সরিষা চাষে ঝুঁকছেন কৃষকেরা। আমরা চলতি মৌসুমে প্রণোদনার আওতায় ৩ হাজার কৃষককে বিনামূল্যে বীজ ও সার সরবারহ করেছি। পাশাপাশি আধুনিক পদ্ধতিতে সরিষা চাষে তাদের নিয়মিত পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপডেট সময় : 12:06:43 pm, Tuesday, 2 January 2024
53 বার পড়া হয়েছে
error: Content is protected !!

ঘোড়াঘাটে বেড়েছে সরিষার আবাদ

আপডেট সময় : 12:06:43 pm, Tuesday, 2 January 2024

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে বারি-১৮ জাতের সরিষার সহ বিভিন্ন জাতের সরিষা চলতি মৌসুমে ২৬৬৫ হেক্টর জমিতে আবাদ করেছেন কৃষকেরা। ধান বা অন্য ফসলের তুলনায় লাভজনক হওয়ায় কৃষকেরা দিন দিন সরিষা চাষে ঝুঁকে পড়ছেন। আবহাওয়া অনুুকুলে থাকায় সরিষার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা এলাকায় বারি-১৮ জাত সহ বারি-১৪, ১৫,১৭, বিনা ৯ ও ১১ জাতের সরিষার আবাদ হয়েছে। যা গত বছরের তুলনায় বেশি। গত মৌসুমে সরিষার আবাদ হয়েছিল ২২০০ হেক্টর জমিতে। চলতি মৌসুমে হেক্টর প্রতি ফলন গত বছরের তুলনায় বেশি হবার সম্ভাবনা রয়েছে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়- ফসলের মাঠ গুলো সরিষা ফুলের হলুদ রঙের অপরুপ শোভা ধারণ করেছে। মাঠে পরিচর্যার কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকেরা। উপজেলার চেঁচুড়িয়া গ্রামের চাষী মো. আইনুল হক ও হুমায়ন কবির বলেন, কয়েক বছর আগেও তাদের জমি পরিত্যক্ত অবস্থায় থাকত, কিন্তু বর্তমানে কৃষি বিভাগের পরামর্শে তারা এখন জমিতে সরিষার চাষ করেছেন। তারা বলছেন বারি-১৮ জাতের সরিষা ভোজ্য তেলের জন্য সবচেয়ে উপযোগী। উপজেলা কৃষি অফিসার মো. রফিকুজ্জামান জানান, এ অঞ্চলের মাটি ও আবহায়া সরিষা চাষের জন্য উপযোগী হওয়ায় সরিষা চাষে ঝুঁকছেন কৃষকেরা। আমরা চলতি মৌসুমে প্রণোদনার আওতায় ৩ হাজার কৃষককে বিনামূল্যে বীজ ও সার সরবারহ করেছি। পাশাপাশি আধুনিক পদ্ধতিতে সরিষা চাষে তাদের নিয়মিত পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি।